মহররমের দিন প্রতিমা বিসর্জন অবশ্যই বন্ধ থাকবে: মমতা

ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা শনিবার আবারো কঠোর হুঁশিয়ারি দিয়ে জানিয়েছে যে, মহররমের দিন প্রতিমা বিসর্জন বন্ধ রাখা হবে। মহররমের জন্য একাদশীতে দুর্গাপ্রতিমার বিসর্জন কেন বন্ধ থাকবে, ক্ষমতাসীন বিজেপি ও সঙ্ঘ পরিবারের এমন প্রশ্নের জবাবে মমতার সাফ কথা, ‘সব ধর্মের মানুষের কথা ভেবে, সব দিকে শান্তি বজায় রাখতেই এই সিদ্ধান্ত। বিসর্জন ও মহররম নির্বিঘ্নে হোক।’

শুক্রবার এ নিয়ে একটি মামলায় কলকাতা হাইকোর্টের ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি নিশীথা মাত্রে মন্তব্য করেন, ‘মুম্বাইতে গণেশ পুজোর শোভাযাত্রা ও অন্য ধর্মীয় মিছিল এক সঙ্গে রাস্তায় বেরুয়।’

পঞ্জিকা মতে এবছর বাঙালী হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের প্রধান ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপূজার দশমী হচ্ছে ৩০ সেপ্টেম্বর। এর একদিন পরেই ১ অক্টোবর মহররম। ভারতের মধ্যে পশ্চিমবঙ্গেই সবচেয়ে ধুমধাম করে পালিত হয় দুর্গোৎসব।

পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকারের প্রাথমিক সিদ্ধান্ত ছিল, দশমীর দিন সন্ধ্যা ছয়টার পর থেকে ১ অক্টোবর পুরো দিন বিসর্জন বন্ধ থাকবে। আবার ২ থেকে ৪ অক্টোবর প্রতিমা বিসর্জন করা যাবে। পরে অবশ্য দশমীর দিন বিসর্জনের সময়সীমা বাড়িয়ে রাত দশটা পর্যন্ত করার কথা বলা হয়।

কিন্তু বিসর্জনে কোনও রকম নিয়ন্ত্রণের বিরোধী বিজেপি। দলের রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ অভিযোগ করেন, ‘বিভাজনের উদ্দেশ্যেই মুখ্যমন্ত্রী এই সব করছেন। হিন্দুদের বলছি, পরম্পরা মেনে প্রতিমা বিসর্জন দেবেন। নেতা-মন্ত্রীর কথা শুনবেন না।’

রাজ্যের ঘোষণাকে চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চে জনস্বার্থ মামলাও দায়ের হয়েছে। শুক্রবার তার শুনানিতে আবেদনকারী স্মরজিৎ চক্রবর্তী জানান, পঞ্জিকা মতে দশমীতে বিসর্জন করা যাবে রাত ১টা ২৬ মিনিট পর্যন্ত। কোনও একটি ধর্মীয় মিছিলের জন্য অন্য একটি ধর্মের আচার-অনুষ্ঠানে নিষেধাজ্ঞা জারি হলে তা নাগরিকদের সাংবিধানিক অধিকার ক্ষুণ্ণ করে।

Facebook Comments